Mon. Mar 1st, 2021
Share
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

উপমহাদেশে হওয়া ১৯৮৭, ১৯৯৬ ও ২০১১ সালের ক্রিকেট বিশ্বকাপের কোনোটিই এখন পর্যন্ত এককভাবে আয়োজিত হয়নি।

১৯৮৭ বিশ্বকাপ পাকিস্তানকে সঙ্গে নিয়ে ভারত, ১৯৯৬ বিশ্বকাপ ভারত,পাকিস্তান ও শ্রীলঙ্কা এই তিন দেশ মিলেই আয়োজিত হয়। আর ২০১১ বিশ্বকাপে ভারত ও শ্রীলঙ্কার সঙ্গে বাংলাদেশেও হয়েছে বিশ্বকাপের অনেকগুলো ম্যাচ।

তবে ২০২৩ বিশ্বকাপ ভারত এককভাবেই আয়োজন করবে বলে এবারের আইসিসির সূচিতে লেখা হয়েছে।

কিন্তু উপমহাদেশে আয়োজিত কোনো দেশ এখন পর্যন্ত এককভাবে বিশ্বকাপ আয়োজন না করায় সে সুযোগটা নিতে চাইছে বাংলাদেশ।

২০২৩ বিশ্বকাপে ভারতের সহ-আয়োজক হতে চেষ্টা চালাচ্ছে বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড (বিসিবি)। দুবাইয়ে আইসিসি সভা শেষে দেশে ফিরে বিসিবি সভাপতি নাজমুল হাসান সাংবাদিকদের এমনটাই জানিয়েছেন।

মঙ্গলবার বিসিবিপ্রধান ক্রীড়া সাংবাদিকদের বলেন, ‘চেষ্টা করছি সহ-আয়োজক হতে। যদি আমাদের পূর্বাচলের নতুন স্টেডিয়ামটি সম্পন্ন করতে পারি তাহলে বিষয়টি বলতে আমাদের সহজ হবে। কারণ কিছু ম্যাচ এখানে করার কথা বলতে পারব আইসিসিকে।

তিনি যোগ করেন, আগামী বিশ্বকাপের কয়েকটি ম্যাচ বাংলাদেশে করতে অনুরোধ জানাবে। সফল হবোয়ার সম্ভাবনা আছে, একেবারে যে নেই, তা নয়। তবে বিষয়টি নিয়ে ভারতের কারও সঙ্গে কথা হয়নি এখনো। আমরা চেষ্টা করছি।’

নকআউট পর্বের ম্যাচ যদি নাও পাওয়া যায়, অন্তত লিগ পর্বে বাংলাদেশের ম্যাচগুলো যেন নিজেদের মাঠে আয়োজন করতে পারে সেই চেষ্টা করা হচ্ছে বলে জানান তিনি।

সৌরভ গাঙ্গুলী ভারতীয় ক্রিকেট বোর্ডের সভাপতি হওয়ায় বিষয়টি বাংলাদেশের পক্ষে যাবে বলে ধারণা করছে বিসিবির কর্মকর্তারা।

সৌরভের বোর্ড সভাপতি হওয়াকে বড় সুখবর মনে করে বিসিবিপ্রধান নাজমুল হাসান পাপন বলেন, ‘সৌরভ গাঙ্গুলী বিসিসিআইয়ের সভাপতি হয়েছেন যা বাংলাদেশের জন্য খুবই ভালো খবর বলে মানে করছি। আমাদের সঙ্গে সৌরভের সবসময়ই ব্যক্তিগত পর্যায়ে সম্পর্ক ছিল।’

এদিকে ২০২৩ বিশ্বকাপের সহ-আয়োজক হতে যখন চেষ্টা করে যাচ্ছে তখন জানা গেল ২০২১ সালে প্রথমবারের মতো হতে যাওয়া মেয়েদের অনূর্ধ্ব-১৯ বিশ্বকাপ আয়োজন করতে যাচ্ছে বাংলাদেশ।

Leave a Reply