রংপুর ডক্টরস ক্লিনিকে চিকিৎসকদের অবহেলায় ১১ মাসের শিশুর মৃত্যু

Share
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  


রংপুর নগরীর ডক্টরস ক্লিনিক এন্ড হাসপাতালে চিকিৎসকদের অবহেলায় ১১ মাসের শিশু মিঠা মারা গেছে বলে স্বজনদের অভিযোগ।

এ ঘটনাকে কেন্দ্র করে হাসপাতাল চত্বরে স্বজনদের আহাজারি আর বিক্ষোভে পুরো হাসপাতালে অচলাবস্থান সৃষ্টি হয়। নীলফামারী জেলার জলঢাকা উপজেলার শৌলমারী কাজিপাড়া গ্রামের শরিফুলের ১১ মাস বয়সী ছেলে মিঠাকে নিউমোনিয়ায় আক্রান্ত হওয়ায় নগরীর মেডিকেল পুর্বগেট এলাকার ডক্টরস ক্লিনিক এন্ড হাসপাতালে গত বৃহসপতিবার ভর্তি হয়।

বিক্ষোভকারীরা ইনজেকশন প্রয়োগকারী চিকিৎসকের বিচার দাবি করলেও হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ বলছে শিশুটির স্বাভাবিক মৃত্যু হয়েছে। এতে চিকিৎসকের কোনো অবহেলা ও চিকিৎসা ব্যবস্থায় ত্রুটির ঘটনা ঘটেনি।

স্বজনদের অভিযোগ শিশুটি সুস্থ ছিলো কিন্তু চিকিৎসকরা ভুল চিকিৎসা দেয়ায় হঠাৎ করে শুক্রবার রাতে শিশুটি অসুস্থ হয়ে পড়ে এবং আজ শনিবার সকালে মারা যায়। কর্তব্যরত চিকিৎসক ডা, উম্মে হাবিবার কাছে মারা যাবার কারন জানতে চাইলে সে কিছু না বলে চলে যাবার সময় স্বজনরা তাকে থামিয়ে মারা যাবার কারন জানতে চাইলেও তিনি কোন সদুত্তোর দিতে পারেননি।

এ ঘটনায় স্বজনদের আহাজারি আর বিক্ষোভে পুরো হাসপাতালে অচলাবস্থার সৃষ্টি হয়। হাসপাতাল কতৃপক্ষ পুৃরো ঘটনাকে ধামা চাপা দেবার চেষ্টা করে কিন্তু স্বজনদের অভিযোগ শিশু মিঠাকে ভুল চিকিৎসা দিয়ে মেরে ফেলা হয়েছে।

কর্তব্যরত চিকিৎসক এ বিষয়ে ক্যামেরার সামনে কথা বলতে রাজি হন নি। সটঃ ডা, উম্মে হাবিবা।

শিশুটির বাবা শরিফুল ইসলাম জানান, শিশু তারা আক্তারকে গত বৃহস্পতিবার (৭ নভেম্বর) রাতে অসুস্থ অবস্থায় রংপুর কমিউনিটি মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। এরপর শুক্রবার রাতে চিকিৎসক উম্মে কুলসুম শিশু তারার শরীরে ঘুমের একটি ইনজেকশন প্রয়োগ (পুশ) করে। পরে শিশুটি মারা যায়।

পুলিশ জানায়, মৃতের পরিবার অভিযোগ দিলে আইনানুগ ব্যবস্থা নেয়া হবে। তবে রোগীর স্বজনরা এটাকে হত্যা বলে দাবি করে দায়িদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেবার দাবি জানায়।

Leave a Reply