Mon. Mar 1st, 2021
Share
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

ফাঁসি কার্যকরের আগে যদি পারভেজ মোশাররফের মৃত্যু হয়, তাহলে তার মৃতদেহ ইসলামাবাদের প্রধান সড়কে তিন দিন ঝুলিয়ে রাখা হবে। পাকিস্তানের সাবেক এই সামরিক শাসকের মৃত্যুদণ্ডাদেশের রায়ের কপি আজ প্রকাশ্যে এসেছে। সেখানেই এমনটি নির্দেশ দিয়েছেন আদালত।

দেশদ্রোহীর অভিযোগে গত মঙ্গলবার পারভেজ মোশাররফের ফাঁসির সাজা দিয়েছিল আদালত। ১৬৭ পাতার রায় আজ প্রকাশ্যে এসেছে। সেই রায়েই চাঞ্চল্যকর তথ্য জানা গেছে।

পাকিস্তানের পেশোয়ার হাইকোর্টের প্রধান বিচারপতি ওয়াকার আহমেদ শেঠের নেতৃত্বাধীন তিন সদস্যের বেঞ্চ দেশদ্রোহীর অভিযোগে প্রাক্তন প্রেসিডেন্ট তথা প্রাক্তন সেনাপ্রধানকে মৃত্যুদণ্ডের সাজা দেয়।

১৬৭ পাতার সেই রায়ে বলা হয়, এই মামলায় অভিযোগ প্রমাণিত হয়েছে। দোষী ব্যক্তিকে মৃত্যুদণ্ড দেওয়া হয়েছে। আইন প্রয়োগকারী সংস্থাগুলোকে নির্দেশ দেওয়া হচ্ছে যে, পলাতক দোষী ব্যক্তিকে গ্রেফতারের জন্য সব রকম চেষ্টা চালাতে হবে। সাজা কার্যকরের আগেই যদি দোষীর মৃত্যু হয়, তা হলে ইসলামাবাদের ডি-চকে তার মরদেহ নিয়ে আসতে হবে। সেখানে তিন দিন ঝুলিয়ে রাখতে হবে।

ডি-চক হচ্ছে পাকিস্তানের এমন একটি জায়গা, যার আশপাশে সরকারি ভবন, প্রধানমন্ত্রীর অফিস ও পার্লামেন্ট ভবন রয়েছে।

১৯৯৯ সালের তৎকালীন প্রধানমন্ত্রী নওয়াজ শরিফকে এক সামরিক অভ্যুত্থানের মাধ্যমে অপসারণ করে ২০০৮ সাল পর্যন্ত পাকিস্তান শাসন করেন মোশাররফ। গত ২০১৩ সালে দেশটির সাবেক এই স্বৈরশাসককে রাষ্ট্রদ্রোহ মামলায় অভিযুক্ত করা হয়। তার বিরুদ্ধে দায়ের করা এ মামলাটি ২০১৩ সাল থেকে ঝুলে ছিলো। এরপরই এই রায় এল।

জরুরি অবস্থা জারি, বেআইনি উপায়ে বিচারপতি বরখাস্ত, বেনজির ভুট্টো হত্যা এবং লাল মসজিদ তল্লাশি অভিযান সংক্রান্ত বেশ কয়েকটি মামলায়ও অভিযুক্ত হন মোশাররফ।

পরবর্তীতে সাবেক সামরিক এই শাসকের বিরুদ্ধে বিদেশ ভ্রমণে নিষেধাজ্ঞা জারি করা হয়। তবে ২০১৬ সালে তিনি চিকিৎসার জন্য বিদেশ যাবার অনুমতি পান। এরপর থেকেই বিদেশ রয়েছেন সাবেক পাক এই সেনাপ্রধান।

সুত্র: এক্সপ্রেস টিবিউন।

Leave a Reply