Mon. Mar 1st, 2021
Share
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

দেশবানী নিউজ ডেস্ক: নীলফামারীর ডিমলায় ধর্ষণের অভিযোগে আটক যুবককে থানায় না দিয়ে ৭০ হাজার টাকার বিনিময়ে ছেড়ে দিয়েছে প্রভাবশালীরা। অভিযুক্ত যুবকের নাম শফিকুল ইসলাম (২২)। উপজেলার কাকড়া গ্রামে তার বাড়ি। এলাকাবাসীর অভিযোগ, স্থানিয় কয়েকজন  প্রভাবশালী ব্যক্তির কারণে ধর্ষিতার পরিবার থানায় মামলা করতে পারেনি।

ঘটনাটি ঘটেছে, বুধবার (২২ জানুয়ারি) ডিমলা উপজেলার নাউতারা ইউনিয়নের সাতজান গ্রামে।

এলাকাবাসী সূত্রে জানাগেছে, ডিমলা উপজেলার সাতজান গ্রামের (৮ নম্বর ওয়ার্ড) এক অসহায় দিনমুজুরের নাবালিকা মেয়েকে একই ইউনিয়নের কাকড়া গ্রামের এক ধনাঢ্য পরিবারের কলেজ পড়ুয়া যুবক শফিকুল ইসলাম দীর্ঘ দিন যাবৎ মোবাইল ফোনে প্রেমের ফাঁদে ফেলে প্রতারণা চালিয়ে আসছিলো। এমতাবস্থায় গত সোমবার (২০ জানুয়ারি) রাতে শফিকুল ইসলাম মেয়েটির বাড়িতে আসে এবং বিয়ের মিথ্যে প্রলোভন দিয়ে ধর্ষন করে। এ সময় প্রতিবেশী লোকজন ঘটনা বুঝতে পেরে যুবক শফিকুল ইসলাম কে আটক করে। আটকের পরে স্থানিয় কয়েকজন প্রভাবশালী দাপুটে ব্যক্তি ঘটনার আপোষ-মিমাংসার নামে ধর্ষককে অজ্ঞাতস্থানে সরিয়ে রেখে তার পরিবারকে ঘটনা টি ধামাচাপা দেওয়ার উদ্দেশ্যে ১ লাখ টাকায় বিষয়টি রফাদফা করার প্রস্তাব দেন। পরবর্তীতে বুধবার (২২ জানুয়ারি) বিকেলে নাউতারা ইউনিয়নের এক সাবেক ইউপি চেয়ারম্যানের বাড়িতে আপোষ-মিমাংসার উদ্দেশ্যে বৈঠকে বসে। এ বৈঠকে স্থানিয় প্রভাবশালীরা ধর্ষকের বিরুদ্ধে আইননুগ ব্যবস্থা গ্রহন না করে মোটা অংকের টাকার বিনিময়ে আপোষ-মিমাংসা করে আটক ধর্ষককে ছেড়ে দিয়েছে বলে জানাগেছে।
ঘটনার বিষয়ে নাউতারা ইউনিয়নের ৮ নম্বর ওয়ার্ড সদস্য শফিকুল ইসলাম বলেন, শুনেছি টাকার বিনিময়ে ঘটনাটি আপোষ-মিমাংসা করা হয়েছে।
উক্ত ইউনিয়নের চেয়ারম্যান সাইফুল ইসলাম (লেলিন) বলেন, শুনেছি ৭০ হাজার টাকায় ধর্ষণের ঘটনাটি আপোষ-মিমাংসার হয়েছে। এলাকার সচেতন মানুষ এ ঘটনায় থানা পুলিশের জরুরী হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন।

01719203758

Leave a Reply