Fri. Feb 26th, 2021
Share
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

মহামা’রি করো’নাভাই’রাস এখনও নিয়ন্ত্রণে আনা সম্ভব বলে জানিয়েছে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা।

শুক্রবার (১১ জুলাই) করো’নাভাই’রাস বিষয়ক সংবাদ সম্মেলনে একথা বলেন বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার প্রধান টেড্রোস আধানম ঘেব্রেইয়েসুস। তিনি বলেন, যেসব জায়গায় করো’না সংক্রমণ সবচেয়ে বেশি, সেখানে বেশিমাত্রায় টেস্ট করতে হবে। ভিয়েতনাম, কম্বোডিয়া, থাইল্যান্ড, নিউজিল্যান্ড, ইতালি, এমনকি ভা’রতের ধারাভি বস্তির কথাও উল্লেখ করেছেন তিনি।

তিনি জানিয়েছেন, বিশ্বে এমন একাধিক জায়গার উদাহ’রণ রয়েছে, যেখানে করো’না পরিস্থিতি বেড়ে যাওয়ার পরও নিয়ন্ত্রণে আনা সম্ভব হয়েছে। গত কয়েকদিন ধরে একটি খবরে করো’নাভাই’রাস নিয়ে আরও বেশি উদ্বেগ বেড়েছে সাধারণ মানুষের। বিজ্ঞানীরা জানিয়েছেন, করো’না ভাই’রাস বায়ুবাহিত। অর্থাৎ বাতাস থেকেও ছড়াতে পারে ভাই’রাস। নতুন এই তত্ত্ব নিয়ে শুরু হয়েছে জো’র জল্পনা। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থাও বিজ্ঞানীদের কথায় স্বি’কৃতি দিয়েছেন।

এ বিষয়ে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার চিফ সায়েন্টিস্ট সৌম্যা স্বামীনাথন জানিয়েছেন, খুব অল্প কিছু ক্ষেত্রে করো’নার জীবাণু বাতাসে বাঁচতে পারে, সংক্রমণও ঘটাতে পারে। এই যে আম’রা কথা বলছি, গান গাইছি এমনকী’ শ্বা’সপ্রশ্বা’স নিচ্ছি এর মাধ্যমে মুখ থেকে অসংখ্য ছোট ছোট জলের ফোঁটা নির্গত হচ্ছে। এগু’লির আকার ভিন্ন ভিন্ন।

তিনি বলেন, যেগু’লি বড় সেগু’লি ১-২ মিটারের মধ্যে মাটিতে পড়ে যায়। তাই সোশ্যাল ডিসট্যান্সিং-এর কথা বলা হয়। তবে যেসব কণা আকারে অ’পেক্ষাকৃত ছোট অর্থাৎ ৫ মাইক্রনেরও কম, তাদের বলে এরোসোল। এগু’লি বাতাসে আরও কিছু সময় থাকতে পারে, মাটিতে পড়তে একটু বেশি সময় নেয়। ফলে, হাওয়ায় এদিক ওদিক হতে পারে সেগু’লি। সেই কণা কেউ প্রশ্বা’সের সঙ্গে গ্রহণ করলে সংক্রমণ হতে পারে।

Leave a Reply