Sat. Apr 17th, 2021
Share
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

কক্সবাজারের চকরিয়ার হারবাং ইউপি চেয়ারম্যান মিরানুল ইসলামের বিরুদ্ধে খাদেমকে পিটিয়ে মাজারের সম্পত্তি দখল করার অভিযোগ উঠেছে। তার বিরুদ্ধে নারী নির্যাতন, ত্রাণ আত্মসাৎ, জমি দখল ও বনভূমি দখলসহ অভিযোগের পাহাড় রয়েছে বলে দাবি করেছেন স্থানীয়রা।

গত ২৩ আগস্ট গরু চুরির দায়ে মা-মেয়েকে পাশবিক শারীরিক নির্যাতন করে এবং কোমরে রশি বেঁধে মিথ্যা মামলা দিয়ে থানায় সোপর্দ করেন ওই ইউপি চেয়ারম্যান। 

এ ঘটনা সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে নানাভাবে প্রকাশিত হলে দেশব্যাপী তোলপাড় শুরু হয়। এ ঘটনাকে কেন্দ্র করে জেলা প্রশাসনের নির্দেশে স্থানীয় সরকার বিভাগের উপ-পরিচালক শ্রাবন্তী রায়কে প্রদান করে দ্রুত গতিতে তিন সদস্যের তদন্ত কমিটি গঠিত হয়। তদন্ত টিম রোববার বিকেল তিনটায় ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন এবং ইউপি চেয়ারম্যানের সঙ্গে তার কার্যালয়ে সাক্ষাৎ করেন।

তদন্ত টিমের প্রধান অপেক্ষমাণ গণমাধ্যমকর্মীদের সঙ্গে কোনো কথা না বলে চলে যান।

এদিকে ইউপি চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে অভিযোগ করে স্থানীয় হামিদুল হক জানান, হারবাং স্টেশনে ১০ একর বনভূমি এরইমধ্যে তিনি দখলে নিয়েছেন। দখলকৃত জমিতে তিনি বহুতল বাণিজ্যিক ভবন তৈরি করেছেন। 

এ ব্যাপারে বনবিভাগের সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে তারা ঘটনার সত্যতা স্বীকার করেন।

এদিকে গত তিন বছর আগে স্থানীয় একটি মাজারে খাদেমকে বেদম পিটিয়ে মাজারের সবটুকু জমি ও মাজারের সব সম্পত্তি দখলে নিয়েছিলেন ইউপি চেয়ারম্যান মিরানুল ইসলাম।

এ ব্যাপারে মামলা করা হলে ওই মামলায় চেয়ারম্যান জেল খেটেছেন বেশ কিছুদিন। বিচারের নামে উৎকোচ গ্রহণ সরকারি বরাদ্দকৃত ত্রাণ সামগ্রী আত্মসাৎসহ নানা অভিযোগ রয়েছে ওই চেয়ারম্যানের  বিরুদ্ধে। বিচারের নামে এলাকার নিরীহ জনগণকে হয়রানি করার অভিযোগ তার বিরুদ্ধে দীর্ঘদিনের।

এ ব্যাপারে ইউপি চেয়ারম্যান মিরানুল ইসলামের সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে তিনি অভিযোগ ভিত্তিহীন মিথ্যা বলে দাবি করেন।

খবর- ডেইলি বাংলাদেশ

Leave a Reply