Sun. Apr 18th, 2021
Share
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

ক`লেজছাত্রীকে নি`র্যা`তনের অ`ভিযোগে কক্সবাজারের উখিয়া থানার ভা`রপ্রাপ্ত ক`র্মকর্তা (ওসি) ম`র্জিনা আ`কতারসহ চার পু`লিশ স`দস্যের বি`রুদ্ধে মা`মলা হয়েছে।মা`মলার অন্য আ`সামিরা হলেন, ক`নস্টেবল মো. সুমন, পু`লিশ প`রিদর্শক (তদন্ত) নুরুল ইসলাম ও এএসআই মো. শা`মীম।মঙ্গলবার কক্সবাজার নারী ও শিশু নি`র্যাতন দ`মন ট্রা`ইব্যুনালে ‘নি`র্যাতি`তা’ কলেজছাত্রী মা`মলাটি দা`য়ের করেন। আ`দালত মা`মলাটি আ`মলে নিয়ে পি`বিআইয়ের অ`তিরিক্ত পু`লিশ সু`পারকে ত`দন্তের নি`র্দেশ দিয়েছে।মা`মলার এজাহারে উ`ল্লেখ রয়েছে,

ক`নস্টেবল মো. সু`মনের (বর্তমানে রাঙামাটি পু`লিশ সু`পার কার্যালয়ে কর্মরত) সঙ্গে দী`র্ঘদিন ধরে প্রে`মের সম্পর্ক চলে আসছিল ওই না`রীর। এ সু`বাদে বি`য়ের কা`বিনের কথা বলে ৭ জুলাই বেলা ২টার দিকে ওই ছাত্রীকে রামুর খু`নিয়াপালং চে`কপোস্ট-সং`লগ্ন ক`ক্ষে নিয়েযায় সুমন।

নি`কাহ রে`জিস্ট্রার আ`সার অ`পেক্ষার অ`জুহাতে তাকে ক`ক্ষে বসিয়ে রাখেন সুমন। পরে সেখানে তাকে ধ`র্ষ`ণ করা হয়। এরপর চে`কপো`স্টের পা`শের একটি দো`কানে বসিয়ে রেখে `জরুরি কাজের বাহানায় পা`লিয়ে যায় ক`নস্টেবল সুমন।ঘ`টনাটি রাত ১১টার দিকে অ`তিরিক্ত পু`লিশ সু`পারকে ফোনে জানান ওই ভু`ক্তভো`গী কলেজছাত্রী। তার প`রামর্শে উ`খিয়া থা`নায় গেলে ভু`ক্তভো`গীকে অকথ্য

ভা`ষায় গালমন্দ করে তার মোবাইল ফোন কেড়ে নেন ওসি মর্জিনা আ`কতার।পরে অ`ভিযুক্ত ওসি`সহ অন্যান্য পু`লিশ ক`র্মকর্তাদের স`হযোগিতায় তাকে থা`নার একটি ক`ক্ষে আ`টকে রেখে ব্যাপক মা`রধ`র ও নি`র্যাতন চালানো হয়। এ`মনকি পায়ে রশি ও হিজাব দিয়ে

চোখ বেঁধে একটি কক্ষে আ`টকিয়ে রাখারও অভিযোগ এনেছেন ভু`ক্তভো`গী। মা`মলার আ`রজির সঙ্গে `নি`র্যাতনের কিছু ছবিও যোগ করেন তিনি।মা`মলার বি`ষয়টি নিশ্চিত করে ওই ট্রাইব্যুনালের পা`বলিক প্র`সিকিউটর অ্যাড`ভোকেট একরামুল হুদা জানান, নি`র্যাতিতা `কক্সবাজারের একটি বেসরকারি কলেজের ছাত্রী।

Leave a Reply