Sat. Apr 17th, 2021
Share
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

বিশ্বের ঐতিহ্যবাহী এক ক্লাব ১৩ বছর বয়সী ক্ষুদে এক আর্জেন্টাইনকে দলে ভেড়ায়, তার ব্যয়বহুল চিকিৎসা খরচ মেটায় এবং প্রতিদানে সেই বালক ক্লাবকে এমন এক অবস্থানে নিয়ে যান, যেখানে হয়তো অন্য আর কেউ কোনদিন নিতে পারতো না বা পারবে না। এমন সুন্দর, নন্দিত এক সফরের সমাপ্তিটা নিয়ে গুঞ্জন চলছে বেশ কিছুদিন যাবত ধরে। বোর্ড-মেসির দ্বন্দ্ব মতবিরোধ এমন স্থানে পৌঁছেছে যে, বার্সাকে বিদায় জানিয়ে ইতিমধ্যে চিঠি দিয়েছেন মেসি।

তবে সুন্দর সফরের শেষটা সুন্দর হচ্ছে না। ক্লাবের সর্বকালের সবচেয়ে বড় কিংবদন্তীর সঙ্গে সম্পর্কের অবনতির চূড়ান্তে যাচ্ছে কাতালান ক্লাবটি। মেসিকে ক্লাব ছাড়তে বাঁধা দেওয়ার জন্যে তাঁকে কোর্ট পর্যন্ত টানতেও পিছপা হচ্ছে না বার্সা বোর্ড। অন্তত এই মুহুর্তে ক্লাব ছাড়তে গেলে সেই পরিণতিই বরণ করতে হচ্ছে মেসিকে। বার্সা-মেসির এমন পরিণতি খোদ বার্সা সমর্থকরাও হয়তো কোনদিন ভাবেনি। তবে সেটাই হতে যাচ্ছে। অন্তত চুক্তিপত্র অনুযায়ী এমনটাই আন্দাজ করা হচ্ছে। ২০২১ সালে মেসির সঙ্গে বার্সার চুক্তির মেয়াদ শেষ হবে। চুক্তি অনুযায়ী এরপরে মেসি অন্য ক্লাবে যেতে চাইলে বিনামূল্যেই যেতে পারবেন। অবশ্য তাছাড়াও কোন ক্লাব চাইলে চুক্তি শেষের আগেই মেসিকে দলে ভেড়াতে পারবে। তবে সেই পথটা বেশ কঠিন। বার্সেলোনার বর্তমান সভাপতি জোসেপ মারিয়া বার্তোমেউর অধীনে মেসির সর্বশেষ চুক্তিতে রিলিজ ক্লজ (বার্সেলোনার অনিচ্ছা সত্ত্বেও কোনো ক্লাব মেসিকে কিনতে চাইলে যে টাকা বার্সেলোনাকে দিতে হবে) ৭০ কোটি ইউরো। তবে এত টাকা খরচ করাটা প্রায় অসম্ভব।

অবশ্য মেয়াদ শেষের আগে মেসি চাইলে ক্লাব ছাড়তে পারবেন। চুক্তিতে সেই সুবিধাও আছে। যেটি কার্যকর হলে তাঁকে পেতে আগ্রহী ক্লাবকে এক ইউরোও খরচ করতে হবে না! ধারাটি এই, মেসি চাইলে প্রতি মৌসুমের শেষে ক্লাব ছেড়ে যেতে পারবেন, সেটিও বিনামূল্যে। তবে সেই ধারাটি কার্যকর করার ক্ষেত্রে ঝামেলা আছে বলেই মেসির বার্সেলোনা ছাড়া নিয়ে জটিলতা দেখা দিয়েছে। চুক্তিতে বলা আছে, সেই ধারাটি কার্যকর করতে হলে মেসিকে সেটি জুনের মধ্যে, অর্থাৎ একটা মৌসুম শেষ হয়ে নতুন মৌসুম শুরু হওয়ার আগে জানাতে হবে। ২০২০ সালের ক্ষেত্রে বার্সাকে মেসির সিদ্ধান্ত জানানোর শেষ সময়টা ছিল ১০ জুনের ২০ দিন আগে। কিন্তু করোনাভাইরাসের কারণে এবার স্বাভাবিকভাবে চলেনি ফুটবল। মাঝে তিন মাস বন্ধ ছিল ফুটবল। যে মৌসুম শেষ হওয়ার কথা ছিল মে মাসে, সেটি শেষ হয়েছে আগস্টে। সেটি নিয়েই এখন জটিলতা। মেসি চুক্তির সে ধারাটি কাজে লাগিয়ে ক্লাব ছাড়তে চাচ্ছেন। তাঁর আইনজীবীর যুক্তি, করোনার কারণে এবার মৌসুম শেষ হয়েছে আগস্টে। আর মেসি নতুন মৌসুম শুরুর আগেই ক্লাব ছাড়ার সিদ্ধান্ত জানিয়ে দিয়েছেন। তাই চুক্তির ধারাটি কাজে লাগাতে কোনো সমস্যা হবে না। কিন্তু বার্সার পাল্টা যুক্তি, মেসির সিদ্ধান্ত জানানোর শেষ সময় ছিল জুন মাসে, সেটি পার হয়ে গেছে। তাই চুক্তির এ ধারা কাজে আসবে না। সে ক্ষেত্রে দুই পক্ষের ঝামেলা মিটমাট হতে পারে আদালতে।

Leave a Reply