Fri. Apr 23rd, 2021
Share
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

বাংলাদেশে ‘মুজিববর্ষ’ উপলক্ষে সারা দেশের প্রাথমিক বিদ্যালয়ে বঙ্গবন্ধু কর্নারের জন্য আটটি বই কিনেছে সরকারের প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়।

কিন্তু এ তালিকায় থাকা বইগুলোর মধ্যে তিনটি বই নিয়ে ‘জালিয়াতি’র অভিযোগ উঠেছে বইগুলো প্রকাশনার সাথে জড়িত দুটি প্রকাশনা সংস্থার বিরুদ্ধে।

অভিযোগ অনুযায়ী, গোপনে প্রকাশকের নাম পরিবর্তন করে নিজের নামে কপিরাইট করে নিয়ে প্রায় ২০ কোটি টাকার বেশি হাতিয়ে নেয়ার চেষ্টা করছে জার্নি মাল্টিমিডিয়া ও স্বাধীকা পাবলিশার্স নামে দুটি প্রতিষ্ঠান।

এ দুটি প্রতিষ্ঠানের সত্ত্বাধিকারী নাজমুল হোসেন ও তার পরিবারের একজন সদস্য । মি. হোসেন পেশায় সাংবাদিক, কাজ করেন ঢাকার একটি বেসরকারি টেলিভিশনে।

তিনি বিবিসি বাংলাকে বলছেন, তারা কোনো ‘জালিয়াতি, দুর্নীতি বা অনিয়ম’ করেননি এবং বইগুলোর বিপরীতে কোনো অর্থও তারা গ্রহণ করেননি।

যে তিনটি বই নিয়ে বিতর্ক তার একটি হলো ‘বঙ্গবন্ধু মানেই স্বাধীনতা’। এর সম্পাদক অমিতাভ দেউরী অভিযোগ করেছেন যে তাকে না জানিয়ে করা বইয়ের পরবর্তী সংস্করণগুলোতে নাজমুল হোসেন কিছু পরিবর্তন এনেছেন ।

“মুক্তিযুদ্ধ মন্ত্রণালয়ের অনুরোধে বইটি আমি সম্পাদনা করলেও পরবর্তীতে আমাকে না জানিয়ে নাজমুল হোসেন নিজের নাম প্রধান গবেষক ও সমন্বয়ক -প্রকাশক হিসেবে তার স্ত্রীর নাম দিয়েছেন। এমনকি গোপনে বইয়ের কপিরাইটও তার নামে করিয়ে নিয়েছেন,” বলছেন মি. দেউরী।

তিনি আজ ঢাকায় কপিরাইট অফিসে তিনি বইটির কপিরাইট বাতিলের আবেদন করেছেন।

মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রী আ.ক.ম. মোজাম্মেল হক বিবিসি বাংলাকে বলছেন, বিষয়গুলো নিয়ে তদন্ত শুরু করছে প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয় এবং সংসদীয় কমিটি।

“তদন্তের মাধ্যেমে সব পরিষ্কার হবে। আপনারা একটু অপেক্ষা করুন। দরকার হলে সব সংস্থা তদন্ত করুক,” বলছিলেন তিনি।

সূত্র-বিবিসি নিউজ

Leave a Reply