Tue. Apr 13th, 2021
Share
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

নেইমারকে বাঁদর বলেছিলেন আলভারো গঞ্জালেজ। তাই নিজের রাগ নিয়ন্ত্রন করতে পারেননি। আলভারো গঞ্জালেজের মাথার পেছনে আঘাত করে সরাসরি লাল কার্ড দেখেন। পরে অলিম্পিক মার্সেইয়ের এ ডিফেন্ডারের বিরুদ্ধে বর্ণবিদ্বেষের অভিযোগ করেন নেইমার। গেল রবিবার রাতে অনুষ্ঠিত হয় পিএসজি-মার্সেইয়ের মধ্যকার ঘটনাবহুল ম্যাচটি। নেইমার ভেবেছিলেন, আঘাত করার বিষয়টি হয়তো রেফারির চোখ এড়িয়ে যাবে। কিন্তু ঘটনা হয় উল্টো। ভিএআরে নিশ্চিত হয়ে লাল কার্ড দেখানো হয় নেইমারকে। সামাজিক মাধ্যম ইনস্টাগ্রামে তিনি লিখেছেন, ‘গতকাল (রবিবার) আমি বিদ্রোহ করেছি।

আমাকে লাল কার্ডের শাস্তি দেওয়া হয়েছে। কারণ, যে আমার ক্ষতি করেছে, তাকে আঘাত করতে চেয়েছিলাম। আমি ভেবেছিলাম, আমি কিছু না করে মাঠ ছাড়তেই পারি না। কারণ, আমি বুঝতে পেরেছিলাম যে, দায়িত্বে থাকা লোকেরা কিছু করবে না, দেখবে না বা বিষয়টি উপেক্ষা করে যাবে।’

ইতিহাস ঘেটে দেখা গেছে, প্রতিপক্ষ ফুটবলারদের বাজে ভাষায় আক্রমণ করা আলভারোর পুরনো স্বভাব। বার্সেলোনার আর্জেন্টাইন সুপারস্টার লিওনেল মেসিকেও পর্যন্ত শারীরিক বিষয় নিয়ে আক্রমণ করেছিলেন আলভারো। সেটা ২০১৫-১৬ মৌসুমের কথা। আলভারো তখন স্প্যানিশ লিগের দল এস্পানিওলে খেলতেন। কাতালান ডার্বির ওই ম্যাচে মেসির বার্সা সতীর্থ ছিলেন নেইমার। আর্জেন্টাইন তারকাকে মাঠে ফাউল করেন আলভারো। এরপরই দুজনের মধ্যে উত্তপ্ত বাক্য বিনিময় হয়। আলভারো নিজেই আরএমসিকে বলেছিলেন, ‘আমরা একে-অন্যের পেছনে লাগতাম। আমি বলেছিলাম, “তুমি সত্যিই খুব বেঁটে। একেবারে ক্ষুদ্রাতিক্ষুদ্র”। সে তখন বলেছে, “তুমি জঘন্য একজন ফুটবলার”।’

আলভারোর ইতিহাসের এখানেই শেষ নয়। তার সঙ্গে আরেক বার্সা তারকা জেরার্ড পিকেরও ঝামেলা হয়েছিল। সেটা ২০১৮-১৯ মৌসুমে। নেইমার তখন বার্সা ছেড়ে পিএসজিতে। আর আলভারো চলে গেছেন ভিয়ারিয়ালে। বার্সার বিপক্ষে ম্যাচে লুইস সুয়ারেসকে ফাউল করে লাল কার্ড দেখেন আলভারো। ড্রেসিং রুমের পাশ দিয়ে যাওয়ার সময় পিকের সঙ্গে তার উত্তপ্ত বাক্য বিনিময় হয়। এবার তার সঙ্গে লেগে গেল নেইমারের। এমনিতেই জর্জ ফ্লয়েড হত্যার ঘটনায় সারাবিশ্বে বর্ণবাদ বিরোধী আন্দোলনে উত্তাল। তার মাঝে বর্ণবাদী মন্তব্য করায় বড় শাস্তি হতে পারে আলভারোর।

Leave a Reply