দেশ বাণী ডেস্ক সারা বাংলা

সীমান্তবর্তী ২৯ টি জেলায় বাড়ছে সংক্রমণ|Deshbani

Share
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

দেশবানী অনলাইন নিউজ: ভারতের সঙ্গে সীমান্ত বন্ধ থাকলেও সে দেশে আটকে পড়া অসংখ্য মানুষ প্রতিদিন দেশে প্রবেশ করছে। সীমান্তবর্তী ২৯টি জেলা দিয়ে বৈধ ও অবৈধভাবে চলছে যাতায়াত।’


বৈধ পথে যারা ফিরছেন, তাদের প্রাতিষ্ঠানিক কোয়ারেন্টাইনে পাঠানো হচ্ছে। কিন্তু যারা অবৈধ পথে ফিরছেন, তাদের চিহ্নিত করা সম্ভব হচ্ছে না। এতে দেশে করোনার ভারতীয় ভ্যারিয়েন্ট ছড়িয়ে পড়ার আশঙ্কা দেখা দিয়েছে। এরই মধ্যে সীমান্তের ২৯টি জেলায় বেড়েছে করোনাভাইরাসের সংক্রমণ।’


স্বাস্থ্য অধি’দফতরের কর্মকর্তা ও বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকরা বলেন, অবৈধভাবে ভারত থেকে মানুষ আসা বন্ধ না হওয়া দেশের জন্য বিপজ্জনক। যেকোনো সময় দেশে করোনার ভারতীয় ভ্যারিয়েন্টের পূর্ণ সংক্রমণ শুরু হতে পারে। সেই ধাক্কা সামাল দেয়া কঠিন হবে। এ থেকে রক্ষা পেতে সীমান্তে সু’রক্ষা নিশ্চিতের বিকল্প নেই।’


তারা আরো বলেন, ভারত থেকে আসা অনেক বাংলাদেশির শরীরেই সংক্রমণ ধরা পড়ছে। তাদের মধ্যে ভারতীয় ভ্যারিয়েন্টের রোগী পাঁচজন। এ কারণে শিগগিরই সীমান্তে কড়াকড়ি আরোপ করা প্রয়োজন।
সম্প্রতি সাতক্ষীরায় প্রাতিষ্ঠানিক কোয়া’রেন্টাইনে থাকা ভারতফেরত ১৩৯ জনের মধ্যে ১১ জনের শরীরে করোনাভাইরাস শনাক্ত হয়েছে। সম্প্রতি একজন ভারতীয় নাগরিক অবৈধ পথে বাংলাদেশে ঢুকে পড়েন। তার শ্বশুরবাড়ি বেনাপোলে। পুলিশ তাকে আটক করে বেনাপোলের একটি হোটেলে কোয়ারেন্টাইনে পাঠিয়েছে।,


জানা গেছে, বৈধ স্থলবন্দর ছাড়াও দুই দেশের বিস্তীর্ণ সীমান্ত এলাকা রয়েছে। যেখানে কাঁটাতারের বেড়া নেই। অনেক এলাকা আছে যেখানে সীমান্তরেখা বাড়ির ভেতর দিয়ে গেছে। এসব পথ দিয়ে অবৈধভাবে বিপুলসংখ্যক মানুষ প্রতিদিন দেশে প্রবেশ করে।’


সম্প্রতি যশোরের একটি স্থলবন্দর দিয়ে বৈধভাবে এক দিনে চারজন দেশে প্রবেশ করেছেন। একই দিন ওই এলাকা দিয়ে অবৈধভাবে প্রবেশ করে ৩০ জন। আবার বৈধভাবে ভারত থেকে আসা উচ্চ’পদস্থ কর্মকর্তার আত্মীয়-স্বজনদের কোয়ারেন্টাইনে রাখা যাচ্ছে না। এছাড়া ঈদ-পরবর্তী ফিরতি যাত্রায়ও মানা হচ্ছে না স্বাস্থ্যবিধি। ১০-১২ বার গাড়ি বদল করে ফিরছেন অনেকে।
স্বাস্থ্য অধিদফতরের মহাপরিচালক অধ্যাপক ডা. আবুল বাসার মোহাম্মদ খুরশীদ আলম বলেন, সীমান্তবর্তী এলাকায় করোনার সংক্রমণ বাড়ছে। অবৈধভাবে ভারত থেকে মানুষ আসা আমাদের জন্য ভয়ের কারণ। সীমান্তে কড়াকড়ি আরোপ না করলে সামনে সংক্রমণ বেড়ে যাওয়ার আশঙ্কা রয়েছে।
এদিকে ৭-১৭ মে ভারত’ফেরত পাঁচ বাংলাদেশির শরীরে ভারতীয় ভ্যারিয়েন্টের উপস্থিতি পেয়েছে যশোর বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের জিনোম সেন্টার। এ সংক্রান্ত ফলাফল জেলা প্রশাসন ও স্বাস্থ্য বিভাগকে জানিয়ে দেয়া হয়েছে। তবে যশোরের সিভিল সার্জন ডা. শেখ আবু শাহীন বলেন, ভারতীয় ধরন চিহ্নিত হওয়ার বিষয়ে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় ও আইইডিসিআর বিস্তারিত বলতে পারবে।

Leave a Reply