ক্যান্সারে আক্রান্ত ডোমারের শাহীন বাঁচতে চায়
দেশ বাণী ডেস্ক মানবিক-

ক্যান্সারে আক্রান্ত ডোমারের শাহীন বাঁচতে চায় | deshbani

Share
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

জাহাঙ্গীর রেজা, স্টাফ রিপোর্টার:

ষ্টোমাক টিউমার কান্সারে আক্রান্ত হয়ে মৃত্যুর সঙ্গে পাঞ্জা লড়ছেন মোঃ শাহীন ইসলাম (২৮) নামের এক অসহায় যুবক, সে বাঁচাতে চায়। শাহীন নীলফামারীর ডোমার উপজেলার চান্দিনাপাড়া ১নং ওয়ার্ডের দিনমজুর শ্রমিক মোঃ ফজলু হকের একমাত্র পুত্র।

বাবা ‘ফজলু হক জানান, আমার তিন মেয়ে অভাবী সংসার থেকে কোন মতে তাদের বিয়ে দিতে পেরেছি। একমাত্র ছেলে শাহীন সেও বিয়ে করে তার ছোট-ছোট তিন পুত্র সন্তান নিয়ে অভাবনীয় সংসার পার করছিলো কোনরকম। এরইমধ্যে পরে গেলো ক্যান্সার রোগে।’

শাহীনের চাচাতো ভাই রবিউল ইসলাম জানান, শাহীন ডোমার চিলাহাটি রোডে ব্যাটারী চালিত অটো-রিক্সা স্টেশনে চেইন মাষ্টারের কাজ করে খুবই কষ্ট করে সংসার চালাতেন। সে গত ৭ থেকে ৮ মাস ধরে মরনব্যাধী ক্যানসার রোগে আক্রান্ত হয়ে অর্থ অভাবে মৃত্যুর সাথে পাঞ্জা লরছেন। শাহীন প্রথমে গন্ধযুক্ত বমি করলে রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে গেলে ষ্টোমাকের ভিতর টিউমারে ক্যান্সার ধরা পরে। পরে ঢাকা উত্তরায় জাহানারা ক্লিনিকে অপারেশন করে কিছুদিন পর আবার রংপুরে এসে কয়েকবার থেরাপি দেওয়া হয়। থেরাপির পরেও রোগীর কোন উন্নতি না হওয়ায় ঢাকা উত্তরা জাহানারা ক্লিনিকের ডাঃ এর সাথে যোগাযোগ করলে অর্থ সংকট ভেবে গুরুত্ব কম দেয়। তিন মাস পরে নিকটতম আত্মীয় স্বজনের কাছে ধারদেনা করে ঢাকা উত্তরা বাংলাদেশ হাসপাতালে নিয়ে গিয়ে আবার পুনরায় অপারেশন করানো হয়।’

শাহীনের বাবা একজন দিনমজুর শ্রমিক

শাহীনের বাবা একজন দিনমজুর শ্রমিক, তাদের কোন জমি জায়গা নেই শুধু বাড়ি ভিটাটুকু আছে।

ডাক্তারের পরামর্শে নিয়মিত কেমো থেরাপি-রেডিও থেরাপি দিলে তাকে বাঁচানো সম্ভব। রংপুর ও ঢাকায় চিকিৎসা করে অভাবী পরিবার এখন অর্থ অভাবে শাহীনের চিকিৎসা কারাতে পারছেনা। ডা. বলেছেন, রোগীর নিয়মিত চিকিৎসা নিলে ভালো হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে।

তার চিকিৎসার জন্য প্রচুর অর্থের প্রয়োজন। তার পরিবারের পক্ষ থেকে এত টাকা জোগাড় করা সম্ভব না। তাই এদেশের বিত্তবানদের কাছে ছেলেকে বাঁচাতে সহযোগিতা চেয়েছেন শাহীনের বাবা মোঃ ফজলু হক।’

ফজলু হক বলেন, আর্থিক সংকটের কারণে আমার ছেলে শাহীনকে আর কেমোথেরাপি দিতে পাচ্ছি না। তাই দেশবাসীর বিত্তবানদের কাছে ছেলের চিকিৎসার জন্য হাত বাড়াচ্ছি, আপনার একটি টাকার চিকিৎসায় বাঁচাতে পারে আমার ছেলের জীবন। যারা এই সাহায্যে এগিয়ে আসতে চান তাদের জন্য নিচে বিকাশ নম্বর দেয়া রইলো।

শাহীনের, বিকাশ নাম্বার- 01791854983 ও বাবা ফজলু হকের বিকাশ নাম্বার- 01740923182

আপনারা চাইলে শাহীন এবং তার বাবার সাথে সরাসরি কথা বলে তাদের বিকাশে সাহায্য পাঠাতে পারেন।

Leave a Reply