মুক্তিযুদ্ধের স্বীকৃতির দাবীতে সংবাদ সম্মেলন

Share
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

পাঁচবিবি (জয়পুরহাট) সংবাদদাতাঃ

১৯৭১ সালে স্বাধীনতা যুদ্ধ চলাকালীন ভারতের বালুরঘাট মালঞ্চা ক্যাম্পে প্রশিক্ষণ নিয়ে দেশকে শত্রæমুক্ত করার প্রত্যয়ে অনেকেই ঝাঁপিয়ে পড়ে মুক্তিযুদ্ধে। জয়পুরহাটের পাঁচবিবির সীমান্তবর্তী রতনপুর গ্রামের মৃত আয়েজ উদ্দিনের ছেলে আকরাম হোসেন প্রামানিকও (৬৫) অংশ গ্রহন করেছিল স্বাধীনতা যুদ্ধে। দেশ স্বাধীন হলো অনেকেই বীর মুক্তিযোদ্ধার স্বীকৃতি পেল আজও পায়নি আকরাম।’

রাষ্ট্রীয়ভাবে স্বীকৃতি না পেলেও এলাকাবাসী তাকে মুক্তিযোদ্ধা বলেই মনে করেন। ইতিপূর্বে সরকারি ভাবে মুক্তিযোদ্ধা যাচাই-বাচায়ে প্রয়োজনীয় কাগজপত্র দাখিল ও সাক্ষ্য প্রমান জোগাড় করেও ফল হয়নি। জীবন বাজি রেখে স্বাধীনতা যুদ্ধে সক্রিয় ভুমিকা রাখলেও স্বাধীনতার ৫০ বছর পেরিয়ে গেলেও মুক্তিযোদ্ধার স্বীকৃতি না পেয়ে হতাশায় দিন কাটছে তাঁর। পরিচয় বিহীন এই মুক্তিযোদ্ধা মসজিদের জায়গায় স্ত্রী, এক ছেলে ও মেয়ে নিয়ে

মানবেতর জীবনযাপন করছেন। আবারও যাচাই-বাচায়ের মাধ্যমে মুক্তিযোদ্ধার স্বীকৃতির দাবিতে নিজ বাড়িতে সংবাদ সম্মেলনের মাধ্যমে সরকারের প্রতি আকুতি জানায় আকরাম ও তাঁর পরিবাব।’

সহযোদ্ধা স্থানীয় বীর মুক্তিযোদ্ধা সামেদ আলী বলেন, আমরা যখন প্রশিক্ষণ শেষ করে দেশে যুদ্ধ করতে আসি, তখন তাকে প্রশিক্ষণ নিতে দেখেছি। তিঁনি আরো বলেন, প্রশিক্ষণ শেষে কে কোথায় যুদ্ধ করেছে জানি না তবে দেশ স্বাধীনের পর বগুড়া শাহ সুলতান কলেজ মাঠে মুক্তিযোদ্ধাদের অস্ত্র জমা দেওয়ার সময় আকরামকেও দেখেছি।’

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) বরমান হোসেন বলেন, কিছুদিন আগেই সরকারি ভাবে মুক্তিযোদ্ধাদের তালিকা যাচাই-বাচাইয়ের কার্যক্রম শেষ হয়েছে। নতুন করে সেই তালিকায় কাউকে নেওয়ার সুযোগ নেই বলে আমার মনে হয়।

Leave a Reply