দেশ বাণী ডেস্ক সারা বাংলা

কাউখালীতে অনলাইন পশুর হাটে সাড়া নেই ক্রেতা বিক্রেতাদের

Share
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

সৈয়দ বশির আহম্মেদ, পিরোজপুর প্রতিনিধিঃ করোন মহামারি এই সময় পশুর হাট বসা না বসা নিয়ে বিক্রেতার মধ্যে হতাশা দেখা দিয়েছে।


পিরোজপুরের কাউখালীতে কোরবানির ঈদকে সামনে রেখে ছোটবড় খামারে গবাদিপশু পালন করা হয়েছে। কিন্তু মহামারি করোনাভাইরাসের সংক্রমণের কারণে এখনো গবাদিপশুর হাটের সিদ্ধান্ত নেয়নি প্রশাসন। এতে হতাশ হয়ে পড়েছেন খামারীরা।

স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, উপজেলা প্রশাসন ও উপজেলা প্রাণিসম্পদ দপ্তরের পক্ষ থেকে ‘অনলাইন গবাদিপশুর হাট কাউখালী পিরোজপুর’ নামে একটি ফেসবুকে ডিজিটাল প্ল্যাাটফর্ম চালু করা হয়েছে। কোরবানীর পশু থাকলে তার সম্পূর্ণ তথ্য ছবি ও বিক্রয়মুল্য, নাম-ঠিকানা মোবাইল নাম্বারসহ আপলোড করতে পারবেন। পশু পছন্দের পর আলোচনায় দরদাম ঠিক ও টাকা পরিশোধের মাধ্যমে বেচাকেনা করা যাবে এই অনলাইন প্ল্যাাটফর্মে।’

প্রাণিসম্পদ অফিস সূত্রে জানা গেছে, এবারের কোরবানি ঈদকে সামনে রেখে ছোট, বড় ২০০শত খামারে ৮১৫টি গবাদিপশু লালন পালন করেছেন। এছাড়া আরো ব্যাক্তি উদ্যোগে ২শত থেকে ৩শত ষাঁড়, বলদ, গাভী, বকনা, মহিষ, ছাগল, ভেড়া গবাদিপশু বিক্রি করার জন্য লালন পালন করা হয়েছে।,


কোরবানির হাটে গবাদি পশু কেনাবেচার লাভজনক হওয়ায় অনেক বেকার যুবকরা আত্মনিয়োগ করেছেন এ পেশায়। কিন্তু করোনার কারণে হাট কি অবস্থা হবে তা নিয়ে দুশ্চিন্তাায় ফেলেছে তাদের। আবার অনলাইনে ডিজিটাল প্ল্যাটফর্ম সম্পর্কে অনেক খামারির ধারনা নেই।,

উপজেলার ডুমজুড়ী গ্রামের খামারী জসিম বলেন, পেশায় তিনি একজন ব্যবসায়ী পাশাপাশি অনেক বছর ধরে গরু লালন-পালন করছেন। গত বছর কয়েকটি গরু বিক্রি করে মোটামুটি টাকা লাভ করেছিলেন। এবারেও ৪টি ষাঁড় বিক্রির জন্য লালন পালন করেছেন। করোনার কারণে ভালো দাম মিলবে কিনা মনে এ আতঙ্ক কাজ করছে।

উপজেলা প্রাণিসম্পদ কর্মকর্তা মোঃ শহিদুজ্জামান বলেন, এটা অন্যান্য বছরের তুলনায় এবারে পশু লালন-পালনের সংখ্যা বেড়েছে। এসব পশু বেচাকেনার জন্য খামারীদের সার্বক্ষনিক পরামর্শ প্রদান করা হচ্ছে। এবারের কোরবানির ঈদকে সামনে রেখে যে পরিমাণ গবাদি পশু লালন পালন করা হয়েছে তা আমাদের উপজেলায় চাহিদা মেটানো সম্ভব।

তিনি আরো বলেন, অনলাইন পশুরহাট কাউখালী পিরোজপুর নামে একটি প্লাটফর্ম চালু করা হয়েছে। সেখান থেকেও কাঙ্খিত পশু বেচাকেনার যথেষ্ট সুযোগ রয়েছে। আমাদের মাঠ পর্যায়ে কর্মীরা অনলাইনে পশু কেনাবেচা জন্য তারাও প্রচার করে যাচ্ছেন।

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোছাঃ খালেদা খানম রেখা বলেন, আপনার বাড়িতে বিক্রয়যোগ্য কোরবানীর পশু থাকলে তার সম্পূর্ণ তথ্য দিয়ে উপজেলা প্রাণীসম্পদ কর্মকর্তার সাথে ০১৭২৩৬৮২৮৩২ যোগাযোগ করুন। কোভিড-১৯ প্রতিরোধে আমরা অনলাইন কোরবানীর পশুর হাটকে উৎসাহিত করতে চাই। করোনা ভাইরাস প্রতিরোধে সকলের সহযোগিতা কামনা করছি।
পরিবেশ প্রতিকূল না হওয়ায় বেচাকেনা সহজতর করতে চালু করা হয়েছে অনলাইন ব্যবস্থা।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *