আলোচিত দেশ বাণী ডেস্ক

স্বামী মারা গেছেন ১৪ দিন আগে, এখনও জানে’ন না স্ত্রী | Db News

Share
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

দেশবানী অনলাইন ডেস্ক ।। “স্বামী মারা গেছেন ১৪ দিন আগে, এখনও জানে’ন না স্ত্রী।” গত ২৯ জুন করোনাভাইরাসে আ’ক্রা’ন্ত হয়ে মা’রা যান বাগেরহাটের শরণখোলা উপজেলায় স্বর্ণ ব্যবসায়ী বাদল কর্মকার (৪০)।’

তার মৃ’ত্যুর ইতি’মধ্যে ১৪ দিন পার হয়ে গেলেও স্বামী বেঁচে নেই সেই খবর এখন’ও জানেন না স্ত্রী সীমা কর্মকার (২৭)।,

তিনি জানেন তার স্বামী সুস্থ হয়েই বাড়ি ফিরে আসবেন। বাদল কর্মকারের শ্যালক উজ্জ্বল কর্মকার জানান, তার বোন সীমা কর্মকার ও ভা’গ্নে সূর্য কর্মকারে’র করোনা পজিটিভ থাকার কারণে তাদের বাদলের মৃ’ত্যুর খবর জানানো হয়নি।’

১২ জুলাই সোমবার সকালে তাদের পুন’রায় করোনা পরীক্ষার নমুনা দেওয়া হয়েছে। রিপোর্ট নেগেটিভ এলে জানানো হবে বাদল কর্মকারে’র মৃ’ত্যুর খবর।”

স্বামী মারা গেছেন

এলাকা’বাসী জানান, জুন মাসের দ্বিতীয় স’প্ত াহে বাদল কর্মকারের পরিবারের সবাই করোনায় আ’ক্রা’ন্ত হয়। কিন্তু সামান্য সর্দি-কাশি ও জ্বরকে তারা গু’রুত্ব দেয়নি। এর মধ্যে বেশ কিছু দিন পার হলে বাদলের শ্বা’সক’ষ্ট বেড়ে যায়।,

অ’সুস্থ বেশি দেখে তারা সবাই গত ২৪ জুন শরণখোলা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে করোনা পরীক্ষা করান। তবে নমুনা পরীক্ষায় বাদলের নেগেটিভ এবং তার স্ত্রী সন্তানের পজি’টিভ রিপোর্ট আসে। কিন্তু বাসায় বাদলের অবস্থার অব’নতি ঘটতে থাকে।

খবর পেয়ে তার শ্বশুর’বাড়ির লোকজন একদিন পর অ্যাম্বুলেন্সে করে বরিশাল শেরেবাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে যান।

সেখানে করোনা পরীক্ষা দেওয়ার দুদিন পর পজিটিভ রিপোর্ট আসে। ততক্ষণে তার অবস্থার আরও অবনতি ঘটতে থাকে। এক’পর্যায়ে ওই হাস’পাতালের করোনা ইউনিটে তাকে ভর্তি করার একদিন পর বাদলের মৃ’ত্যু হয়। ওই দিনই তাকে সৎ’কার করা হয়।,

শরণ’খোলা স্বাস্থ্য কর্মক’র্তা ডা. ফরিদা ইয়াসমিন জানান, নমুনা পরীক্ষার রিপোর্ট প্রায় ৬০ ভাগ সঠিক পাওয়া যায়। যার কারণে বাদল কর্মকারের রিপোর্ট হয়তো সঠিক হয়নি।-দেশবানী নিউজ

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *