দেশ বাণী ডেস্ক সারা বাংলা

লাশ নিলো না পরি’বার, দাফন করলাে ছাত্রলীগ | Db News

Share
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

দেশবানী অনলাইন ডেস্ক ।। “লাশ নিলো না পরিবার, দাফন করলাে ছাত্রলীগ।”হাসপাতাল চিকিৎসা’ধীন অবস্থায় মারা যান ফাতেমা , লাশ নিচ্ছিলো না তার পরিবার ও স্বজনরা।’

সেই বৃদ্ধার মরদেহ দাফন করলেন কয়েকজন ছাত্রলীগ সদস্য।,

ঘটনাটি ঘটেছে শনিবার (১৭ জুলাই) রাত সাড়ে দশটার দিকে কুড়িগ্রামে’র ফুলবাড়ি উপ’জেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে।?,

হাসপাতাল সূত্রে জানা যায়, মৃত বৃদ্ধার নাম ফাতেমা বেওয়া। দেড় মাস আগে কেউ এক’জন স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করান তাকে। বার্ধক্য’জনিত নানা রোগে ভুগ’ছিলেন এই বৃদ্ধা।’

ভর্তির পর থেকে মৃত্যুর আগ পর্যন্ত বৃদ্ধার আত্মীয়-স্বজন’রা কেউ তার খোঁজ খবর রাখেনি, মৃত্যুর পর নেয়নি লাশও।,

গতকাল শনিবার- বিকাল ৫ টার দিকে ফুল’বাড়ি উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের বিছানা’য় তার মৃত্যু হয়। মৃত্যুর পর তার মরদেহ কেউ নিতে আসেনি। রাত দশটার দিকে উপজেলা ছাত্র’লীগের সদস্য’রা খবর পেয়ে স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে আসেন।”

এসময় উপজেলা ছাত্রলীগ সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক মেহেদী হাসান বৃদ্ধার পরি’বারের সাথে যোগা’যোগ করেন। বৃদ্ধার তিন ভাই মরদেহ নিতে গড়ি’মসি করেন।

দীর্ঘ সময় অপেক্ষা করা হলেও তারা মরদেহ নিতে আসেননি। বৃদ্ধার ছেলে-মেয়েরা ঢাকায় থাকেন। তারাও কোনো সাড়া দেননি।

পরে ছাত্রলীগ নেতা মেহেদী হাসানের নেতৃত্বে উপজেলা ছাত্রলীগের নেতা’কর্মীরা বৃদ্ধার মরদেহ দাফনের দায়িত্ব গ্রহণ করেন। উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের মসজিদ প্রাঙ্গনে জানাজা নামাজের আনুষ্ঠানিক’তা শেষে রাত ১১টার দিকে ফুলবাড়ী কেন্দ্রীয় কবর স্থান বৃদ্ধার লাশ দাফন করেন তারা।,

স্থানীয়’রা জানান, মৃত. ফাতেমা বেওয়ার স্বামী আজাহার আলী প্রায় এক বছর আগে মারা যান। স্বামীর মৃত্যুর পরে বৃদ্ধা কুড়ি’গ্রামের ফুলবাড়ী উপজেলার বিলুপ্ত ছিট’মহল দাসিয়ার’ছড়ার সমন্বয়’পাড়ায় তার ভাইয়ের বাড়িতে চলে আসেন।’

লাশ নিলো না

বৃদ্ধার এক ছেলে ও এক মেয়ে অনেক’দিন থেকে পরিবার নিয়ে ঢাকায় থাকেন। ফাতেমার তিন ভাই অতি’দরিদ্র হওয়ায় চিকিৎসার জন্য ফুলবাড়ী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করায়। ভর্তির পরে দেড় মাসেও বৃদ্ধার আপনজন ও কোনো আত্মীয়-স্বজন হাসপাতালে খোঁজ-খবর নিতে আসেনি।,

উপজেলা ছাত্রলীগর সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক মেহেদী হাসান জানান, বৃদ্ধা দেড় মাস ধরে হাসপাতালে চিকিৎসা’ধীন ছিলেন। এই দেড় মাসে তার কোনো আত্মীয়-স্বজন দেখতে আসেনি। মৃত্যুর পর মরদেহটিও কেউই না নেয়ায় আমরা মৃত দেহের দাফনের দায়িত্ব গ্রহণ করি।

ফুলবাড়ি উপজলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের জরুরী বিভাগের চিকিৎসক ডা.উম্মে হাফসা জানান, ওই বৃদ্ধা প্রায় গত দেড় মাস ধরে এখানে চিকিৎসাধীন ছিলেন। কেউ একজন ভর্তি করে দিয়ে গেছেন। বৃদ্ধা নানা রোগে ভুগ’ছিলেন।’

শনিবার বিকেলে সাড়ে পাঁচটার দিকে তিনি মারা যান।-দেশবানী নিউজ

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *