দেশ বাণী ডেস্ক সারা বাংলা

আজ ১০ই মহররম উপলক্ষে সৈয়দপুরে বৃদ্ধিকরা হয়েছে প্রশাসনের নজর’দারী

Share
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  


মোঃজাকির হোসেন নীলফামারী প্রতিনিধি।।

সারা দেশের ন্যায় নীলফামারী সৈয়দপুরে পালিত হচ্ছে পবিত্র আশুরা (মহররম)। দিবসটি উপলক্ষে ইমামবাড়ায় বা সৈয়দপুর কেন্দ্রীয় স্মরণীয় কারবালায় কোনো অপ্রীতিকর ঘটনা এড়াতে পুলিশ প্রশাসনের নজরদারীসহ গোয়েন্দারা রয়েছে সতর্ক অবস্থায়।

এরই মধ্যে প্রতিটি ইমামবাড়া ও হাতিখানা কবরস্থানের পাশে অবস্থিত স্মরণীয় কারবালায় পুলিশি টহল জোরদার করা হয়েছে।আজ (২০ আগস্ট) শুক্রবার ১০ মহররম পবিত্র আশুরা উপলক্ষে কারবালার শোকাবহ ঘটনাবহুল এ দিনটি  স্মরণ করবেন  সৈয়দপুরের মুসলিম ধর্মালম্বীরা৷দিবসটি পালনে সৈয়দপুরে অবাঙ্গালি অধ্যুষিত শিয়া ও সুন্নি সম্প্রদায়ের একটি অংশ  স্বাস্থ্যবিধি মেনে তাদের তরিকানুযায়ী দিবসটি পালন করতে প্রস্তুতি সম্পন্ন করেছে।

অপরদিকে আশুরা পালন উপলক্ষে সৈয়দপুর উপজেলা প্রশাসন ধর্ম মন্ত্রণালয়ের নির্দেশনা অনুযায়ী, সব ধরনের তাজিয়া মিছিল, শোভাযাত্রা, মিছিল ইত্যাদি বন্ধ থাকবে। তবে যথাযথ স্বাস্থ্যবিধি ও সামাজিক দূরত্ব অনুসরণ করে আবশ্যক সব ধর্মীয় আচার-অনুষ্ঠান প্রতিপালিত হবে। এমন নির্দেশনা প্রদান করেন সৈয়দপুর উপজেলা প্রশাসন ইমামবাড়া কমিটিদের।

আশুরা উপলক্ষ্যে গতকাল (১৯ আগস্ট) বৃহস্পতিবার দুপুর ২ টায়  সৈয়দপুর উপজেলা প্রশাসনের উদ্যোগে হলরুমে আয়োজিত সভায় উলে­খিত নির্দেশনা দেয়া হয়।

সভায়  উপস্থিত ছিলেন, সৈয়দপুর উপজেলা চেয়ারম্যান, উপজেলা নির্বাহী অফিসার, সৈয়দপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা ও স্থানীয় ইমামবাড়ার নের্তবৃন্দ। সে নির্দেশনা মেনেই শুক্রবার সকাল ৮টার পর থেকে শহর এলাকায় ইমামবাড়ায় ভিড় জমাতে শুরু করেন শিয়া সম্প্রদায়ের অনুসারীরা।এ ব্যাপারে সৈয়দপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আবুল হাসনাত খান জানান, ইমামবাড়ার কমিটির সভাপতিদের সাথে দফায় দফায় মতবিনিময় করা হয়েছে। তাজিয়া ও পাইক মিছিল বন্ধ রেখে স্বাস্থ্যবিধি মেনে ধর্মপ্রাণ শহরবাসী ইমামবাড়ায় ধর্মীয় অনুষ্ঠান পালন করার সিদ্ধান্ত হয়েছে। তিনি বলেন অনুষ্ঠানস্থলে দা, ছোরা, কাঁচি, বর্শা, বল¬ম, তরবারি, লাঠি বহন এবং আতশবাজি ও পটকা ফোটানো সম্পূর্ণ নিষিদ্ধ থাকবে।


জানা যায়, পবিত্র আশুরা পালন উপলক্ষে আনুষ্ঠানিকতা শুরু হয় গত ৭ই মহররম বিকেল ৩টা থেকে পাইক (দুলদুল ঘোড়া) সাঁজানোর মধ্য দিয়ে। এইর মধ্যে সম্পন্ন হয়েছে তাজিয়া তৈরীর কাজ। প্র¯ত্তুত করা হয়েছে ৪৪ টি ইমামবাড়া। সেলক্ষ্যে প্রতিটি ইমামবাড়ায় দোয়াপাঠ ও শরবত বিতরণ চলছে। ইমাম হোসেনের মাজারকে স্মরণ করে তৈরি করা হয় এসব তাজিয়া।সৈয়দপুর হাতীখানা কবরস্থানে অবস্থিত কেন্দ্রীয় স্মরণীয় কারবালার সাধারণ সম্পাদক আব্দুল হালিম জানান, দিবসটি পালনে ইতোমধ্যে সমস্ত কাজ সম্পন্ন করেছি। ১ মহররম থেকে কারবালার ঘটনার স্মরণের নিশান উত্তোলনের মধ্যদিয়ে পবিত্র আশুরা পালনের প্রস্তুতি শুরু হয়েছে। ৭ই মহররম বিকেল ৩টা থেকে মাগরিব পর্যন্ত পাইক (দুলদুল ঘোড়া) বাঁধানো বা সাঁজের মধ্য দিয়ে শুরু হয়েছে ১০ই মহররমের কার্যক্রম।সৈয়দপুর ইমামবাড়া কেন্দ্রীয় কমিটি সূত্র মতে, দেশের দ্বিতীয় বৃহত্তম তাজিয়া মিছিল বের হয় এ শহরে।

কিন্তু করোনা ভাইরাসের কারণে গত বছর মিছিল বের করা হয়নি। তবে স্বাস্থবিধি মেনে সীমিত আকারে পাইকরা মিছিল নিয়ে সৈয়দপুরে কেন্দ্রীয় প্রতিকী কারবালায় গিয়ে তাদের মানত প্রক্রিয়া শেষ করবে।আজ ১০ মহররম শহরের হাতিখানাস্থ  প্রতিকী কেন্দ্রীয় স্মরণীয় কারবালায় সূর্যঅস্তের পূর্বে আখেরি মোনাজাতের মধ্যদিয়ে শেষ হয় এর আনুষ্ঠানিকতা।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *