দেশ বাণী ডেস্ক সারা বাংলা

ফেনীর দাগনভূঞা মাদকাসক্ত ও চাঁদাবাজ সেকান্তরের হামলায় রিপোর্টার্স ইউনিটির সভাপতিসহ আহত ৩

Share
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

ফেনীর দাগনভূইয়া উপজেলার সদর ইউনিয়নের দঃ ধর্মপুর গ্রামের মুন্সি বাড়ীর দরজায় মাদকাসক্ত ও চাঁদাবাজ শেকান্তর (৫০) তার দোসরদের হামলায় আহত হয়েছে দাগনভূইয়া রিপোটার্স ইউনিটির সভাপতি মােয়াজ্জেম হােসেন মালদার জাতীয় স্বদেশ প্রতিদিন দাগনভূঞা প্রতিনিধিসহ ৩ জন।’

মামলার বিবরণ সূত্র জানা যায়, ১৩ আগস্ট রাত সাড়ে নয়টার সময় নিজ ব্যবসা প্রতিষ্ঠানের সামনে ফেনী প্রেসক্লাবের সাবেক সভাপতি, আরটিভি, দৈনিক যায়যায়দিন পত্রিকার ফেনী প্রতিনিধি আজাদ মালদার স্হানীয় লোকজনের সাথে কথা বলার সময় মাদকসেবি, সন্ত্রাসী,দঃ ধর্মপুরগ্রামের মুত এবাদ উল্লাহর ছেলে শেকান্তর প্রকাশ্যে গালমন্দ ও প্রাননাশের হুমকি দেয়। এতে তাঁর ছোট ভাই মাইন উদ্দিন বাঁধা দিলে তাকেও তার বাকি ২ ভাই লোকমান, সোলেমান সহ তারা আক্রমন করে। মাইন উদ্দিন কে উদ্বার করতে গিয়ে সাংবাদিক মোয়াজ্জেম হোসেন মালদার মালদার (স্বদেশ প্রতিদিন দাগনভূঞা ও মুক্ত স্বদেশ বিশেষ প্রতিনিধি) আহত হয়। এ ঘটনায় দাগনভূইয়া থানায় একটি লিখিত এজাহার দায়ের করেন সাংবাদিক মোয়াজ্জেম হোসেন মালদার। মামলা নঃ ৯ তাং১৪,০৮,২০২১।ধারা ৩৪৩, ৩২৩, ৩০৭, ৩১৯, ৪২৭, ৫০৬।’

উল্লেখ্য, চাঁদাবাজ সেকান্তর রিক্সা চালক থেকে ট্রাক্টর চালক। চুরি, ডাকাতি,মাদক বেচাকেনা, জোর করে অন্যের জমি দখল করে একটি অবৈধ স্কেবেটর, চোরাই মোটরসাইকেল, ট্রাক্টরের মালিক হয়েছে। এলাকায় তার একটি ভাড়া রুমে মদ, গাঁজা খাওয়া দাওয়া, বেচাকেনা চলে। এর প্রতিবাদ করতে গিয়ে সিনিয়র সাংবাদিক ও মালদার ফাউন্ডেশনের চেয়ারম্যান আজাদ মালদার সহ সকল সাংবাদিকের জাত গুষ্টি তুলে গালাগাল করে। তার বেপরোয়া আচরণে উপস্থিত লোকজন হতভম্ব হয়ে যায় । তার মাদকাসক্ত বাহিনীর ইন্ধনে এসব অপকর্মের মাত্রা বৃদ্ধি পাওয়া যুব সমাজকে ধ্বংস করে দিচ্ছে। আসামী আগাম জামিন নিয়ে সাংবাদিক পরিবারকে ভয়ভীতি প্রদর্শণ করে আসছে। এ বিষয়ে সাংবাদিক আজাদ মালদার ১৭ তারিখ দাগনভূঞা থানায় লিখিত জিডি করেন। উক্ত ঘটনার তীব্র নিন্দা জানান দাগনভূঞা রিপোর্টার্স ইউনিটির ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক আবদুল মুনাফ পিন্টুসহ দাগনভূঞা রিপোর্টার্স এর সকল সাংবাদিকগন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *