দেশ বাণী ডেস্ক সারা বাংলা

সন্তান’দের দেখতে ঢাকায় আসা সেই জাপানি নারীর সঙ্গে হৃদয়’বিদারক আচরণ স্বামীর

Share
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

দেশবানী অনলাইন ডেস্ক।। সন্তান’দের দেখতে ঢাকায় আসা সেই জাপানি নারীর সঙ্গে হৃদয়’বিদারক আচরণ স্বামীর।। বাংলাদেশি বংশোদ্ভূত স্বামী শরীফ ইমরানের (৫৮) সঙ্গে বিবাহ’বিচ্ছেদের পর তার কাছ থেকে নিজের দুই সন্তানকে ফিরে পেতে ঢাকায় এসে’ছিলেন জাপানি নাগরিক ডা. নাকানো এরিকো।”

কিন্তু ঢাকায় এসে স্বামীর হৃদয়’বিদারক আচরণের শিকার হয়েছেন তিনি। দুই কন্যা শিশু’কে নিজের কাছে ফিরে পেতে বাংলাদেশের হাইকোর্টে রিট করেছেন তিনি।

এরিকোর আইন’জীবী অ্যাডভোকেট মোহাম্মদ শিশির মনির জানান, ২০০৮ সালের ১১ জুলাই জাপানি আইন অনুসারে জাপানি নাগরিক নাকানো এরিকো (৪৬) এবং বাংলাদেশি বংশোদ্ভূত আমেরিকান নাগরিক শরীফ ইমরানের (৫৮) বিয়ে হয়,

তাদের সংসারে তিনটি কন্যা সন্তানের জন্ম হয়। তাদের তিনজন’কেই টোকিও’র চফো সিটিতে আমেরিকান স্কুল ইন জাপান (এএসআইজে)-এ ভর্তি করা হয়। সেখানেই তারা পড়া’লেখা করছিল।

কিন্তু পারি’বারিক বিরোধের জেরে চলতি বছরের ১৮ জানুয়ারি বিয়ে বিচ্ছেদের জন্য জাপানি আদালতে মামলা করেন এরিকো।’

কয়েক’দিন পর ২১ জানুয়ারি বড় মেয়েকে নিজের সঙ্গে নিতে শরীফ ইমরান স্কুল কর্তৃপক্ষের কাছে আবেদন করেন। কিন্তু এরিকোর সম্মতি না থাকায় স্কুল কর্তৃপক্ষ সে আবেদন খারিজ করে দেয়।’

পরবর্তী’তে বড় দুই মেয়েকে স্কুলবাস থেকে নামিয়ে নিজের ভাড়া বাসায় নিয়ে যান ইমরান। এরপর বাচ্চা’দের পাসপোর্ট হস্তা’ন্তরের জন্য গত ২৫ জানুয়ারি শরীফ ইমরান আইনজীবীর মাধ্যমে আবেদন করেন। কিন্তু এরিকো তা প্রত্যাখ্যান করেন।”

এ অবস্থায় গত ২৮ জানুয়ারি এরিকো টোকিও’র পারিবারিক আদালতে তার বাচ্চাদের জিম্মায় রাখতে মামলা করেন। আদালত শিশুদের সঙ্গে পারিবারিক’ভাবে সাক্ষাতের আদেশ দেন।

পরবর্তীতে গত ৯ ফেব্রুয়ারি ইমরান তার মেয়েদের জন্য নতুন পাসপোর্টের আবেদন করেন এবং গত ১৭ ফেব্রুয়ারি নতুন পাসপোর্ট গ্রহণ করেন। এরপর ইমরান বড় মেয়ে দুটিকে নিয়ে গত ২১ ফেব্রুয়ারি দুবাই হয়ে বাংলাদেশে চলে আসেন।,

সন্তানদের দেখতে ঢাকায়

এদিকে টোকিও’র পারি’বারিক আদালত গত ৩১ মে এরিকোর জিম্মায় মেয়ে দুটিকে হস্তান্তরের আদেশ দেয়। এ অবস্থায় গত ১৮ জুলাই এরিকো শ্রীলংকা হয়ে বাংলা’দেশে আসেন।’

এরপর মেয়েদের সঙ্গে সাক্ষাতের চেষ্টা করেন। ইমরানের সঙ্গে যোগা’যোগ করেন। ইমরান সন্তানদের সঙ্গে সাক্ষাতে অ’স্বীকৃতি জানান। অবশেষে সন্তানদের সঙ্গে সাক্ষাতের সুযোগ পেলেও তা ছিল হৃদয়’বিধারক ঘটনা।’

গত ২৭ জুলাই এরিকোকে চোখ বেঁধে গুলশান থেকে একটি মাইক্রোবাসে তুলে নেওয়া হয়। এরপর কোনো একটি বাসায় নিয়ে মেয়ে’দের সঙ্গে সাক্ষাতের সুযোগ দেওয়া হয়।

সাক্ষাত শেষে আবার চোখ বেঁধে একই গাড়িতে করে গুলশানে নামিয়ে দেওয়া হয়।,

এ অবস্থায় সন্তান দুটিকে আদালতে হাজির করা এবং নিজের জিম্মায় নেওয়ার নির্দেশনা চেয়ে বাংলাদেশের হাইকোর্টে রিট আবেদন করেন মা এরিকো।’-

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *