দেশ বাণী ডেস্ক দেশজুড়ে

দেড় কোটি টাকার সেতুর দুই পা’শে বাঁশের পুল

Share
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

দেড় কোটি টাকার সেতুর দুই পা’শে বাঁশের পুল।।শরীয়তপুরের ভেদরগঞ্জ উপজেলার সখিপুর থানার উত্তর তারাবুনিয়া ইউনিয়নের নমকান্দি গ্রামের রাস্তার একটি খালের ওপর ব্রিজ নির্মাণ করা হলেও দুই দিকে সংযোগ সড়ক না থাকায় ব্রিজটি এলাকাবাসীর কোনো কাজে আসছে না।”

ফলে সরকারিভাবে কোটি টাকা ব্যয় করে নির্মিত ব্রিজটি অকেজো অবস্থায় পড়ে রয়েছে।উদ্বো’ধনের ছয় বছর পার হলেও এ সেতুতে সুফল পাচ্ছেন না কেউই। ফলে ভোগান্তির শিকার হচ্ছে জনগণ।আর উপজেলা প্রকৌশলী কার্যালয় বলছে, শিগ’গিরই সংযোগ সড়ক নির্মাণ করা হবে। ,

সরে’জমিনে গিয়ে ও ভেদরগঞ্জ উপজেলা প্রকৌশলী কার্যালয় সূত্রে জানা যায়, ২০১৬-১৭ অর্থ বছরে উপজেলার সখিপুর থানার উত্তর তারা’বুনিয়া ইউনিয়নের নম’কান্দি রাস্তার খালের উপর সেতু নির্মাণ করা হয়।’

প্রায় ১ কোটি ৬০ লাখ ১২ হাজার টাকা ব্যয়ে সেতু নির্মাণ করা হলেও সংযোগ সড়ক না থাকায় এলাকা’বাসীর কোনো কাজেই আসছেনা এই সেতু। গত দুই বছর আগে ভারী বর্ষণে পদ্মা নদের পানির তোড়ে সেতুর দুই দিকের সংযোগ সড়ক ভেঙে যায়।,

এদিকে, প্রায় দুই বছরেও সংযোগ সড়ক না হওয়ায় দুর্ভোগে পড়েছে ছয় গ্রামের হাজারো মানুষ। বর্তমানে সেতুর সঙ্গে দুই দিকে বাঁশের খুঁটি দিয়ে সাঁকো তৈরি করে এর ওপর দিয়ে ঝুঁকি নিয়ে চলা’চল করছে স্থানীয়’রা।,

দেড় কোটি টাকার

এ ব্যাপারে উত্তর তারাবুনিয়া ইউনিয়ন পরি’ষদের চেয়ার’ম্যান ইউনুস সরকার বলেন, গত দুই’বার সেতুটির এক’পাশে সংযোগ সড়কে ব্যক্তি’গত পক্ষ থেকে টাকা খরচ করে বাঁশের সাঁকো দিয়েছি।

অতি’বৃষ্টির কারণে মাটি সরে গিয়ে সেতুর দুই মাথার এই অবস্থা হয়েছে। তাছাড়া সেতুর সংযোগ সড়কের বেহাল অবস্থা। ব্রিজটির ব্যাপারে মন্ত্রী থেকে শুরু করে উপজেলা চেয়ারম্যান’সহ সবাই অবগত আছেন।

এ ব্যাপারে এলজিইডি ভেদরগঞ্জ উপজেলা উপ-সহকারী প্রকৌশলী ইব্রাহিম হোসেন বাংলানিউজকে বলেন, এ ব্যাপারে ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষ অবগত আছেন। প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিতে ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে লিখিতভাবে জানানো হবে।,

ভেদর’গঞ্জ উপজেলার নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) তানভীর আল নাসীফ বাংলানিউজকে বলেন, খোঁজ নিয়ে দ্রুত সমস্যা সমাধানের জন্য সংশ্লিষ্ট দফতরকে নির্দেশ দিয়েছি। দ্রুতই রাস্তা নির্মাণ করে সেতুটি চলাচলের উপযোগী করা হবে।- বাংলা নিউজ

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *