দেশ বাণী ডেস্ক সারা বাংলা

সৈয়দপুরে আইও ডাব্লু কে ম্যানেজ করে দখলকৃত রেলওয়ের জায়গায় বাড়ি নির্মাণ

Share
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

মোঃ জাকির হোসেন, নীলফামারী প্রতিনিধি।। নীলফামারীর সৈয়দপুরে রেলওয়ের ভূ-সম্পত্তি রক্ষণাবেক্ষনের দায়িত্বপ্রাপ্ত কর্তৃপক্ষ (আইওডাব্লু) এর কর্মকর্তা কর্মচারীদের ঘুষ দিয়েই চলছে দখলকৃত রেলওয়ের জমিতে বাড়ি নির্মাণের মহো’ৎসব।

সম্প্রতি এ কারণে শহরের বিভিন্ন এলাকায় রেলভূমিতে একের পর এক অবৈধ বাড়ি তৈরির হিড়িক পড়েছে।’

আরসিসি পিলার দিয়ে ছাদ পেটানো বাড়ি করাসহ ছোট বড় অংসখ্য বাড়ি তৈরী হয়েছে ইতোমধ্যে। সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের সম্মতি থাকায় এ ক্ষেত্রে জমি দখলকারীরা যে যেভাবে পারছে বাড়ি করতে তৎপর হয়ে পড়েছে নির্দ্বিধায়।,

জানা যায়, সৈয়দপুর রেলওয়ে বিভাগের সিংহভাগ কোয়াটার ও পরিত্যাক্ত জমি অবৈধ দখলে চলে গেছে। এসব কোয়াটারে বহিরাগত ব্যক্তিরা বসবাস করাসহ অবকাঠামো পরিবর্তন করে ইচ্ছেমত আদলে বাড়ি ও ব্যবসায়ীক প্রতিষ্ঠান তৈরী করেছে।,

জমিগুলোতেও গড়ে উঠেছে অসংখ্য ঘর বাড়ি ব্যবসা প্রতিষ্ঠান। দীর্ঘদিন থেকে চলে আসা এ প্রক্রিয়া এখনও অব্যাহত।

রেলওয়ের ভূ-সম্পত্তি ও বাংলো কোয়াটার দেখভালের দায়িত্ব উপ-সহকারী প্রকৌশলী (ভূ-সম্পত্তি) আইওডাব্লুর। কিন্তু জনবল সংকটের অজুহাতে এ বিশাল এলাকা তদারকিতে তারা একেবারে নির্বিকার।

বাধা দেওয়া তো দূরের কথা খবর পেয়ে নিষেধ করার ক্ষেত্রেও তারা গাফেল। বরং পারলে তারা বাড়ি করনেওয়ালাদের কাছ থেকে ব্যক্তিগতভাবে আর্থিক সুবিধা নিয়ে নিরবতা পালন করে।,

অনেক সময় কেউ অবৈধ বাড়ি করার খবর দিলে বা সংবাদকর্মীরা এ ব্যাপারে কর্তৃপক্ষকে অবগত করলে আইডাব্লু অফিসের কর্তাব্যক্তিরা অধিনস্ত মাস্টার রোলের কর্মচারীদের পাঠিয়ে লোক দেখানো কাজ বন্ধ করে দেয়া বা কোয়াটার বাংলোতে তালা দেয়।

পরে সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিদের অফিসে ডেকে এনে লেনদেনের মাধ্যমে সমঝোতা করে। এমনই এক ঘটনা ঘটেছে শহরের সাহেবপাড়া মহল্লার মুক্তিযোদ্ধা স্কুল সংলগ্ন এলাকায়। ওই এলাকার সেলিম নাপিত একটি বাড়ি নির্মাণ করছে। সেখানে আইওডাবøু অফিসের নৈশ প্রহরী দুলাল গিয়ে ১০ হাজার টাকা নিয়ে নির্বিঘেন বাড়ি করার অনুমতি দিয়ে এসেছে।

সৈয়দপুরে আইও ডাব্লু

সেলিম নাপিতের স্ত্রী জানায় তাদেরকে লিখিত কাগজ করে দিয়েছে এই কাজ করার জন্য। তাদের কাছ থেকে রেলওয়ে ভূমি অফিসের লোকজন এসেও টাকা নিয়েছে বলে জানান তারা। এধরণের নানা অভিযোগ প্রায় সময়ই পাওয়া যায় বিভিন্ন স্থান থেকে।

এই দুলাল ও মাছুমের মাধ্যমেই চলছে আইও ডাব্লু অফিসের কর্মকর্তাদের অবৈধ বাড়ি নির্মানের আর্থিক বাণিজ্য। রেলওয়ের জমিতে বাড়ি নির্মাণ বা কোয়াটার ক্রয় বিক্রয়ের খবর সব সময়ই তাদের কাছে আসে। তারা এটাকে কাজে লাগিয়ে অর্থ হাতিয়ে নিয়ে দায়িত্ব পালনে অনিহাই শুধু নয় বরং দায়িত্বকে বৃদ্ধাঙ্গুলি দেখিয়ে নিজেদের স্বার্থ হাসিল করে চলেছে।

একটি সূত্র মতে বর্তমান সহকারী প্রকৌশলী (এইএন) আহসান উদ্দিন ও ভূ-সম্পত্তি রক্ষণাবেক্ষণ কর্মকর্তা (আইওডাব্লু) শরিফুল ইসলাম আসার পর থেকে অবৈধ দখলদাররা বাড়ি নির্মানে যেন হাফ ছেড়ে বেচেছে। তাদের জোগসাজশে অধস্তণ কর্মচারীদের মাধ্যমে


অবৈধ আর্থিক সুবিধা নেওয়ার কারণে বিনা বাধায় চলতি বছরে প্রায় সহ সহস্রাইক নতুন বহুতল ভবন, ছাদ পেটানো বাড়ি ও দোকান তৈরি হয়েছে। সেই সাথে দিনের আলোতেই দখল হচ্ছে নতুন নতুন এলাকা।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *